আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ, গোল, হ্যাটট্রিক…সব দেখা হয়ে গেল বিশ্বকাপের দ্বিতীয় দিন, চতুর্থ ম্যাচেই! পর্তুগাল-স্পেন ম্যাচটি মনে হচ্ছিল ফাইনাল। এমন ম্যাচে রেকর্ড না হলে কি হয়! হয়েছেও তাই।

রেকর্ডের জন্য যাঁর জন্ম সেই রোনালদো গোল করলেন টানা চার বিশ্বকাপে। প্রথম কোনো পর্তুগিজ হিসেবে চার বিশ্বকাপে গোল করলেন, হলো টানা আট আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে গোল করার অনন্য এক রেকর্ডও। সে রেকর্ডও ছাপিয়ে গেল একটু পরে। যখন বিশ্বকাপের ৫১তম হ্যাটট্রিকটি করলেন রোনালদো। আরেকটি তথ্য কাকতালীয়, সেটা হচ্ছে এটা রোনালদোর ক্যারিয়ারেরও (ক্লাব ও জাতীয় দল মিলিয়ে) ৫১তম হ্যাটট্রিক। এত রেকর্ডের মাঝে একটি রেকর্ডে রোনালদো হয়তো মন খারাপ করবেন, মন খারাপ হতে পারে তাঁর সমর্থকদেরও। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বয়সী যে খেলোয়াড়টি হ্যাটট্রিক করেছেন তিনি রোনালদো। বয়স যে ৩৩ হয়ে গেল।

আরেকটি রেকর্ড স্পেন সমর্থকদের বুকে কাঁটা হয়ে বিধবে। সেখানেও কারিগর ওই রোনালদোই। রোনালদোর আগে যে কেউ এটা করে দেখাতে পারেনি। বিশ্বকাপের ইতিহাসের পাতা উল্টে তন্ন তন্ন করে খুঁজে দেখা হলো; না এমনটি কেউ করেনি এর আগে। বিশ্বকাপের মঞ্চে স্পেনের বিপক্ষে এর আগে কেউ হ্যাটট্রিক করতে পারেনি। পেরেছেন একজন তিনি পর্তুগীজ ফুটবলের রাজপুত্র, তিনি রোনালদো।